আপনি ভিডিওর মাধ্যমে কিভাবে অনলাইন ক্লাসকে কার্যকর বানাতে পারেন?

নতুন যুগের ছেলে/মেয়েরা দ্রুত গতিতে তাদের ফোনে সেঁটে থাকে এবং ভিডিও দেখতে থাকে| দৈনন্দিন জীবনে ভিডিওগুলি যে প্রভাব ফেলে সে কথা বিবেচনা করে, এটি স্বাভাবিক যে এই প্লাটফর্মটি শিক্ষার  মধ্যেও সম্প্রসারিত হয়েছে| নিম্নে উপায়গুলি প্রদান করা হয়েছে যার মাধ্যমে শ্রেণীকক্ষে ভিডিওগুলি অন্তর্ভুক্ত করে আপনার ছাত্র/ছাত্রীদের তাদের পাঠের বিষয়বস্তুগুলি উপলব্ধি করার ক্ষেত্রে সহায়তা করা যেতে পারে|

 

  1. ভিডিওগুলি কেবল বই ব্যবহার করার চাইতে আরো বেশি সংজ্ঞাবহ অভিজ্ঞতা প্রদান করে| ছেলে/মেয়েরা সংজ্ঞাবহ অভিজ্ঞতার সাথে বেশি ভালভাবে সম্পর্কস্থাপন করতে পারে কারণ ভিডিওগুলি মস্তিষ্ক কে আরাম দেওয়ার সাথে সাথে সরল ভাষা এবং উজ্জ্বল চিত্র ব্যবহার করে জ্ঞান প্রদান করে|  

 

  1. যেহেতু সেগুলিকে যে কোনো জায়গা থেকে, যে কোনো ডিভাইসে দেখা যেতে পারে তাই সেগুলি ছাত্র/ছাত্রীদের জন্য একটি বিশিষ্ট সংস্থান| এক গাদা বই বহন করার চাইতে ভিডিওগুলি বেশি সুবিধাজনক ও হয়|

 

  1. ভিডিওগুলি জ্ঞানের ধারণক্ষমতা কে বাড়ায়| ভিডিও মনে রাখা আরো বেশি সহজ কারণ সেগুলি তথ্যকে সংক্ষিপ্ত পদ্ধতিতে উপস্থাপিত করে| ভিডিওগুলি অনায়াসে মুখ্য বিষয়ের ওপর কেন্দ্রীভূত করা যেতে পারে এবং সেই বিষয়টিকে আরো ভালোভাবে বোঝার জন্য ব্যাখ্যা করা যেতে পারে|

 

  1. ভিডিওগুলি ফ্লেক্সিবল কারণ সেগুলি চালানো এবং থামানো যায়| কেবল মুদ্রণ সামগ্রী ব্যবহার করে, ছাত্র/ছাত্রীরা যে পৃষ্ঠা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে সেই প্রত্যেক পৃষ্ঠা মুড়ে রাখা কষ্টকর হতে পারে| অতিরিক্ত সংস্থান হিসাবে ভিডিওর সাথে, তাদের শুধুমাত্র টাইম-স্ট্যাম্প মনে রাখতে হবে|

 

পাঠ্যক্রমে ভিডিওগুলি অন্তর্ভূক্ত করে ছাত্র/ছাত্রীদের অতিরিক্ত চাপ না দিয়ে বা ফোকাস না হারিয়ে তাদের তথ্য শিখতে সাহায্য করে| অনলাইন ক্লাস সম্পর্কে আরো তথ্যের জন্য আমাদের ওয়েবিনার দেখুন - https://www.dellaarambh.com/webinars/ [dellaarambh.com]



বাচ্চারা যা ভালবাসবে সেই কার্যকর অনলাইন শিক্ষণ কিভাবে করে তৈরি করা যাবে

কোনও ছাত্রছাত্রীর ক্ষেত্রে, শ্রেণীকক্ষের অভিজ্ঞতা সম্পূর্ণরূপে বদলে গেছে|  আপনার টিফিন বাক্স এবং ক্যান্টিন-এর বড়া পাও শেয়ার করা, কোনও শিক্ষক/শিক্ষিকা অনুপস্থিত থাকায় সেই 2 মিনিটের অগোছালো শ্রেণীকক্ষের পার্টি, এবং খেলার সময়ে ফুটবল ম্যচ চলাকালীন পরিহাস এখন পুরোনো দিনের কথা হয় গেছে|

 

সবকিছু ডিজিটাল| যখন এত কিছু পরিবর্তিত হয়েছে তখন শিক্ষণে কোনও পরিবর্তণ না হওয়া সুনিশ্চিত করার জন্য এখানে কিছু উপায় দেওয়া আছে|

  1. নির্ধারিত স্থান: বেঞ্চ থেকে স্কুলের ঘণ্টা পর্যন্ত, সবকিছু ক্লাসের বাতাবরণ তৈরি করতে সাহায্য করে| একই উপায়ে, আপনার নিজের জন্য নির্ধারিত স্থান থাকা শেখা এবং তথ্য নিবিষ্ট করা-র জন্য জায়গা তৈরি করার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ|
  2. ক্ষোভ: কিছুক্ষণ পরে অনলাইন ক্লাসে বিরক্ত না হওয়া কঠিন| কমপক্ষে বলতে গেলে অধৈর্য, ছাত্র/ছাত্রীরা সোশ্যাল মিডিয়া দেখতে থাকে এবং নির্বিকারভাবে আনন্দের জন্য স্ক্রল করতে থাকে|  আপনি অ্যাপ ব্লকার বা এক্সটেনশন ইনস্টল করতে পারেন যা দিনের নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট  অ্যাপগুলির অ্যাক্সেস বন্ধ করে দেয়|
  3. কৌতুহল জাগিয়ে তোলা: অনলাইন ক্লাসগুলির মধ্যে ছাত্র/ছাত্রী-শিক্ষক/শিক্ষিকার সম্পর্ক স্থির থাকে এবং দৃষ্টি সংযোগ হয় না,  এবং তাদের উপর কোনো নজরদারী না থাকার ফলে ধারণাগুলি না বোঝা খুবই সহজ|  ছেলে/মেয়েদের সন্দেহ জিজ্ঞাসা করার জন্য এবং পরে খুঁটিযে বিশ্লেষণ করা এবং বোঝার জন্য লেকচারগুলি রেকর্ড করতে উত্&zwjসাহিত করুন|
  4. স্ক্রিনের সময় নিয়ন্ত্রণ করা: নতুন মিডিয়ামের ক্ষেত্রে, ছাত্র/ছাত্রীদের প্রতিদিন অনেক সময় পর্যন্ত স্ক্রিনে মনোনিবেশ করার প্রয়োজন হয়, এবং অল্প সময়ের জন্য হলেও এটি ক্ষতিকারক| ডিজিটাল জগত থেকে নিয়মিত বিরতি নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ - শারিরীক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য সন্ধ্যাবেলায় হাঁটা বা ব্যাডমিন্টন খেলা সহায়ক হয়|

শিক্ষণ কিভাবে আপনার বাচ্চাদের কাছে ও মজাদার হতে পারে সেই সম্পর্কে জানার জন্য আমাদের ওয়েবিনারে দেখুন - https://www.dellaarambh.com/webinars/



আপনার বাচ্চাদের শেখানোর সময় সহানুভূতি ও উদারতা-র গুরুত্ব

ছেলে/মেয়েরা বিশ্বের বর্তমান পরিস্থিতি দ্বারা সবচাইতে বেশি প্রভাবিত হয়েছে| সবকিছু বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ছেলে/মেয়েরা তাদের শ্রেণীকক্ষ, বন্ধু-বান্ধব ও শিক্ষণ পরিবেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছে| জ্ঞানের জন্য সুরক্ষিত স্থান তৈরি করার দায়িত্ব পিতা-মাতার উপরে স্থানান্তরিত হয়ে গেল, যারা প্রযুক্তির সাথে লড়াই করে সহায়ক শিক্ষণ পরিবেষ তৈরি করার জন্য নিজেদেরকে তৈরি করার চেষ্টা করল|

 

পিতা-মাতাদের অপরিচিত পরিস্থিতি থেকে তাদের পথ তৈরি করার সময়, সহানুভূতি ও সহায়তা প্রদর্শন করার কথা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ| এমনকি প্রশিক্ষিত শিক্ষক/শিক্ষিকাদের ও তাদের নিজেদের বাচ্চাদের শেখানোর সময় মুশকিল হয়| দূরস্থ শিক্ষা চলাকালীন তাদেরকে নিবদ্ধ থাকার, আগ্রহী হওয়ার এবং ভারসাম্য রাখার ক্ষেত্রে সাহায্য করার জন্য আপনি নিম্ন জিনিস করতে পারেন:  

 

  1. সংগতিপূর্ণ প্রতিক্রিয়া: নিজেদের মধ্যে প্রতিক্রিয়ার চক্রটি সংগতিপূর্ণ এবং মৃদু রাখুন| পিতা-মাতাদের ছেলে/মেয়েদের সাথে সহজতর হওয়া প্রয়োজন| শিক্ষক/শিক্ষিকারা যখন ছাত্র/ছাত্রীদের সাথে ইণ্টারেক্ট করছেন তখন তাদের ক্ষেত্রে ও এটি প্রযোজ্য| একটি কার্যকর প্রতিক্রিয়ার চক্র অগ্রগতির উপরে নজর রাখতে সাহায্য করে| 
  2. কিছু বিশ্রান্তির সময় রাখুন: শিক্ষাগত পরিবেশ এবং বাড়ির পরিবেশ এক হয়ে যাওয়ার ফলে কিছু উত্&zwjকর্ষ সময় কাটানো এবং আরাম করার জন্য বিশ্রান্তির সময়ের প্রয়োজন| এটি পিতামাতা এবং ছেলে/মেয়ে উভয়কে চাপ কমাতে সাহায্য করবে|
  3. সহনশীল হন: প্রত্যেক ছেলে/মেয়ে ভিন্ন গতিতে শেখে| মুশকিল বিষয়বস্তুর ক্ষেত্রে সহনশীল থাকুন এবং ধৈর্য রাখুন ও কোনও দ্বিধা ছাড়া তাদেরকে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করার জন্য উত্&zwjসাহীত করুন|
  4. প্রেরণা দিন: প্রেরণা ছেলে/মেয়েদের এবং পিতা-মাতাদের একে অপরের সাথে আরো ভালোভাবে সম্বন্ধস্থাপন করতে সাহায্য করে এবং আত্ম-সচেতনতাকে বর্ধিত করে| যখন আপনার সন্তান সমাজে যাবে তখন এটি আত্মবিশ্বাস ও বাড়ায়|

 

বাচ্চাদের এবং পিতা-মাতার তাদের অভিজ্ঞতা থেকে বিকশিত হওয়ার জন্য সহানুভূতিশীল ও মনোরম পরিবেশ তৈরি করা সম্পর্কে আরো জানার জন্য আমাদের ওয়েবিনারে যোগদান করুন|



ছাত্র/ছাত্রীদের তাদের ক্যামেরা চালু করার জন্য উৎসাহিত করার উপায়

গত দুই বছরের মধ্যে শিক্ষার সমস্ত বুনিয়াদী প্রথাকে পুনরায় ব্যাখ্যা করা হয়েছে| অনলাইন ক্লাসের ক্ষেত্রে, দিনের বেশিরভাগ সময়ের জন্য তাদের ল্যাপটপে সেঁটে থাকার কারণে ছেলে/মেয়ে-দের ক্লান্ত হয়ে পরাটা খুব স্বাভাবিক| তাদের সহপাঠীদের সাথে তারা যে মজা করত সেটি হারিয়ে ফেলার অনুভূতির সঙ্গে এটি যুক্ত হয়ে যায়| এটির মোকাবেলা করার জন্য, শিক্ষক/শিক্ষিকারা অনলাইন ক্লাসকে মজাদার করার উদ্দেশ্যে সামাজিক-আবেগময় শিক্ষা পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন এবং তাদের ছাত্র/ছাত্রীদের-কে তাদের ক্যামেরা চালু রেখে নিম্ন অনুশীলন করার জন্য তাদেরকে উৎসাহিত করে তাদের মধ্যে সম্প্রদায়ের অনুভূতি পুন:প্রতিষ্ঠিত করতে পারেন:

ভূমিকা-পালনের অনুশীলন: সাহিত্যের ক্লাসে ভূমিকা-পালন এনার্জিকে জোরদার করার একটি ভাল উপায়| আপনার নাটক অথবা পাঠ পড়ার সময় ছাত্র/ছাত্রীরা বরাদ্দ অংশের ভূমিকা পালন করতে পারে|

গল্পের সময় ব্যবহার করুন: ক্লাসের শেষে গল্পের সময়ের জন্য সময় রেখে ছাত্র/ছাত্রীদের-কে বিরতি নেওয়ার জন্য উৎসাহিত করুন| শেষে নীতিকথা সহ মজাদার কাহিনী আপনার ছোট ছাত্র/ছাত্রীদের দিনকে উদ্ভাসিত করতে পারে| প্রত্যেক ক্লাসের শেষে ছাত্র/ছাত্রীদেরকে তাদের ক্যামেরা চালু করে একটি গল্প বলতে বলুন| কালান্তরে এটি তাদের আত্মবিশ্বাস তৈরি করতে ও সাহায্য করে এবং  তাদের জনসমক্ষে কথা বলার দক্ষতাকে উন্নত করে|

সৃজনশীল উপস্থাপনা: স্কুলের কাজ ছাড়া অন্য বিষয়ের উপরে উপস্থাপনা ছাত্র/ছাত্রীদেরকে একে অপরের সাথে ইন্টারেক্ট করতে উৎসাহিত করবে| শ্রেণীকক্ষে একাত্মতার অনুভূতিকে ফিরিয়ে আনার জন্য তারা একসাথে কাজ করে গ্রুপ প্রোজেক্ট ও উপস্থাপন করতে পারে|

এছাড়া, আপনি ছাত্র/ছাত্রীদেরকে প্রতিদিনের কার্যকলাপ সম্পর্কে একে অপরের সঙ্গে ইন্টারেক্ট করার অনুমতি ও দিতে পারেন, তাদেরকে একে অপরের অগ্রগতি বিশদভাবে বর্ণনা করার শিক্ষা দিতে পারেন এবং সমবায়িক শিক্ষার উপায়গুলি উপস্থাপিত করতে পারেন| এটি ছাত্র/ছাত্রীদেরকে অনলাইন ক্লাসে আত্মবিশ্বাসী হতে সাহায্য করে এবং তাদেরকে নিশ্চেষ্ট অংশগ্রাহী না হয়ে ক্যামেরা চালু করে অংশগ্রহণ করতে সাহায্য করে|